আন্তজার্তিক

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ’তওকত’

ভারত উপকূলে ধেয়ে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় তওকত। আগামী মঙ্গলবার ঘূর্ণিঝড়টি আছড়ে পড়তে পারে গুজরাট উপকূলে। দেশটির আবহাওয়া দফতর শনিবার জানিয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ‘প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে’ পরিণত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে তওকতের।

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস, আগামী ১২ থেকে ১৫ ঘণ্টার মধ্যে ঘণ্টায় ১৪৫ কিলোমিটার বেগ ধারণ করতে পারে তওকত। বর্তমানে গতিবেগ ঘণ্টায় ১২০ থেকে ১৩০ কিলোমিটার। আগামী ১৮ মে দুপুরে প্রবল এ ঘূর্ণিঝড় গুজরাট উপকূলে আঘাত হানতে পারে। সুপার সাইক্লোনে পরিণত হয়ে মঙ্গলবার ভারতীয় উপকূলে আঘাত হানার সময় এর গতিবেগ হতে পারে ঘণ্টায় ১৬০-১৭৫ কিলোমিটার।  ইতোমধ্যে ভারতের পশ্চিম উপকূলবর্তী পাঁচটি রাজ্য কেরালা, গোয়া, কর্নাটক, মহারাষ্ট্র এবং গুজরাটে জারি করা হয়েছে সতর্কতা।

একইপথে ১৯৩৩ ও ৭৫ সালে দুটি ঘূর্ণিঝড় আঘাত হেনেছিল গুজরাটে। ১৯৭৫ সালের ওই ঘূর্ণিঝড়ে গুজরাটে প্রাণ হারান চার হাজারের বেশি মানুষ। তাই তওকতে ক্ষতি ঠেকাতে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক হয়েছে। প্রস্তুত রয়েছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর ৫৩টি দল।
শুক্রবার রাতে তওকত লাক্ষ্মাদ্বীপ এবং আরব সাগরের পূর্ব-মধ্য ও দক্ষিণ-পূর্ব এলাকায় অবস্থান করছিল। অর্থাৎ এটি কেরালার কান্নুরের থেকে পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিমে ২৯০ কিলোমিটার, গুজরাতের ভেরাবলের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে ১,০১০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। সমুদ্র উত্তাল থাকায় মঙ্গলবার পর্যন্ত মৎস্যজীবীদের আরব সাগরে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। নিম্নচাপের ফলে ভারী বৃষ্টি হচ্ছে কেরালা।বৃষ্টি ও ঝড়ের কারণে কেরালায় বাড়িঘর ভেঙে পড়েছে। এ ছাড়াও রাজ্যটির বেশ কয়েকটি স্থানে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

রোববার পর্যন্ত কেরালা, কর্নাটক ও গোয়ার উপকূলীয় জেলাগুলোতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি এবং ভূমিধসের শঙ্কা রয়েছে। ভারী বৃষ্টি ও ভূমিধস হতে পারে গুজরাটের বিভিন্ন উপকূলবর্তী অঞ্চলে। লক্ষদ্বীপের নিচু এলাকাগুলি প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এমন আরো তথ্য পেতে চোখ রাখুন: https://www.facebook.com/rajtvbd

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button