বিশেষ সংবাদ

বোনকে ধর্ষণচেষ্টা, পুরুষাঙ্গ কেটে ছেলেকে হত্যা

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় ছোটবোনকে ধর্ষণচেষ্টা করায় ছেলের পুরুষাঙ্গ কেটে হত্যা করেছে বাবা ও মা। নিহত তরুণের নাম হাসান (১৮)। এ ঘটনায় পরিবারের সদস্যদের আটকের পর পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বাবা, মা ও ছোটবোন হাসানকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

এ ঘটনায় আটককৃত তিন আসামী হলেন নিহত হাসানের বাবা শামীম মিয়া (৪০), মা হাসিনা বেগম (৩৮) ও হাসানের ছোটবোন শিলা (১৫)। মুন্সিগঞ্জ গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রইছ উদ্দিন বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ।

এ বিষয়ে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানায়, গত ২১ ডিসেম্বর রাতে ছোটবোন শিলা (১৫) প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাথরুমে যাওয়ার পথে তাঁকে জড়িয়ে ধরেন হাসান। এ সময় বোনকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে তার চিৎকারে বাবা-মা ছুটে আসেন। এ সময়ে হাসানের মা হাসিনা বেগম ছেলেকে ঘরে নিয়ে মুখে বালিশ চেপে ধরেন আর বাবা শামীম মিয়া ছেলের হাত-পা ধরে রাখেন। এ সময় ছোটবোন শিলা ধারালো ছুরি দিয়ে হাসানের পুরুষাঙ্গ কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

ওসি আরো জানান, ঘটনার ১৮ দিন পর গতকাল শুক্রবার মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দী ইউনিয়নের হোসেন্দী বাজার সংলগ্ন নয়াগাঁও এলাকায় বাড়ির পাশের ডোবা থেকে হাসানের (১৮) মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তবে বাড়ির এতো কাছে লাশ পাওয়া যাওয়া এবং হত্যাকাণ্ড নিয়ে পরিবারের অসংলগ্ন বক্তব্যে প্রথম থেকে সন্দেহ হয়। ছেলেটি মাদকাসক্ত থাকায় এবং স্থানীয় প্রভাবশালী ছেলের সঙ্গে বিরোধ থাকায় সবগুলো বিষয়কে মাথায় নিয়েই এগুতে থাকে পুলিশ।

আসামিদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি এবং গামছা উদ্ধার করেছে পুলিশ। যদিও নিহত হাসানের স্বজনরা প্রতিপক্ষ একজনের ওপর দায় চাপাতে চেয়েছিলেন। তাঁরা মিথ্যা তথ্য দিয়ে বার বার পুলিশকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছে। তবে তাদের কথায় বিভ্রান্ত হয়নি পুলিশ। সঠিক ও সুষ্ঠূ তদন্ত শেষে এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচিত করেছে। আটককৃত আসামীদের আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান মুন্সীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশফাকুজ্জামান।

এমন আরো তথ্য পেতে চোখ রাখুন: http://facebook.com/rajtvbd

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button